• E-paper
  • English Version
  • মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৫:৫৩ পূর্বাহ্ন

×

পাইকগাছায় সুখেন হত্যার কারণ পরকীয়া : খুনি প্রকাশ গ্রেপ্তার

  • প্রকাশিত সময় : মঙ্গলবার, ২২ মার্চ, ২০২২
  • ১৭০ পড়েছেন

খুলনার পাইকগাছায় সুখেন হত্যার মোটিভ দুই সপ্তাহ পর উদঘাটিত হয়েছে।  খুনি প্রকাশ গ্রেপ্তারের পর ফোনের আসল রহস্য বেরিয়ে এসেছে। স্ত্রীর সাথে পরকিয়ার কারণেই সুখেনকে খুন করা হয়েছে বলে প্রকাশ প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে।

খুলনার পাইকগাছায় সুখেন সরদার হত্যার খুনি প্রকাশ সরদার (৩৫) কে পুলিশ গ্রেফতার করেছেন।

মঙ্গলবার বেলা ১১ টায় লস্কর ইউপি চেয়ারম্যান কেএম আরিফুজ্জামান তুহিন ও স্থানীয়দের সহয়তায় কয়রার আমাদী ইউপির চক গোয়ালবাড়ী শুশ্বরবাড়ী এলাকা থেকে খুনি প্রকাশ সরদার ( ৩৫) কে গ্রেফতার করে পুলিশ।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানান, প্রকাশ নিহত সুখেন এর প্রতিবেশি খড়িয়া ভড়েঙ্গার চকস্থ জয়দের সরদারের ছেলে। গ্রেফতারের পর পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে খুনির দেখানো মতে সুব্রত ঢালীর চিংড়ি ঘেরের পশ্চিম পাশ্বের পাড়ে পানিতে পুতে রাখা ক্ষেত নিংড়ানো ধারালো লোহার রড উদ্ধার করেছেন।

এদিকে কোন হয়রানী ছাড়াই হত্যাকান্ডের ১৫ দিনেই খুনের মোটিভ উদ্ধার ও একমাত্র আসামী গ্রেফতারে এলাকার মানুষের কাছে পুলিশের ভূমিকা প্রশংসিত হয়েছে।

মামলা তদন্ত কর্মকর্তা সুকান্ত কর্মকার জানান, আটক প্রকাশের স্ত্রী জিগাজ্ঞাবাদে ইতোমধ্যে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন। যা মামলা তদন্তে যথেষ্ঠ সহয়তা করবে।

তিনি আরো জানান, প্রকাশ সরদারের স্ত্রীর সাথে নিহত সুখেন সরদার দীর্ঘদিন পরকিয়ায় জড়িত ছিল। এক সময় মোবাইলে কথাপোকথন জানতে পেরে প্রকাশ তার স্ত্রী ও সুখেন কে সতর্ক করে দেয়। কিন্তু সতর্কতায় কোন কাজ না হওয়ায় প্রকাশ স্ত্রীকে আত্মহত্যা করতে বলেন। এর পর সে নিজেকে শেষ করে দেওয়া নতুবা সুখেনকে মেরে ফেলার পরিকল্পনা করেন। হত্যাকান্ডের ৩ দিন পুর্বে সে ক্ষেত নিংড়ানো লোহার রডের মাথা আগুনে তাপ দিয়ে ধারালো করে। ঘটনার দিন ৭ মার্চ রাত সাড়ে ৮ টার পর বাড়ীর অদুরে সুখেন নিজ চিংড়ি ঘেরে পৌছিয়ে কাত হয়ে বাসার দরজা খোলার মুহুর্তে পিছন থেকে প্রকাশ ধারালো রড দিয়ে চোয়ালে আঘাত করে বুকে উপুর্যপুরী চুরিকাঘাত করে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যায়। গ্রেফতারের পর প্রকাশ পুলিশের কাছে প্রাথমিক ভাবে হত্যার দায় স্বীকার করেছেন। এ ঘটনায় নিহতের মা অমেলা সরকার বাদী হয়ে অজ্ঞাতদের নামে থানায় হত্যা মামলা করেন। হত্যাকান্ডের পর স্থানীয়রা এক ধরনের আতঙ্কে ছিল। হত্যা সম্পর্কে নিহতের পরিবার বা স্থানীয়রা সঠিক কোন তথ্য দিতে না পারায় পুলিশের উপর নির্ভরতা বেড়ে যায়। সর্বশেষ খুনি গ্রেফতারে এলাকায় স্বস্ত্বি ফিরে এসেছে।

এ হত্যা মামলা সম্পর্কে ওসি মোঃ জিয়াউর রহমান বলেন, পরকিয়ার জেরে পুর্ব পরিকল্পিত ভাবে এ খুনের ঘটনা ঘটেছে। যা গ্রেফতারের প্রকাশ সরদার সবই স্বীকার করেছেন

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: BD IT SEBA