×

কোনো অনির্বাচিত সরকারকে আর ক্ষমতায় আসতে দেওয়া হবে না : শেখ হাসিনা‘র কারাবন্দি দিবসের আলোচনায় সভায় সিটি মেয়র

  • প্রকাশিত সময় : রবিবার, ১৭ জুলাই, ২০২২
  • ১২৯ পড়েছেন

খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সিটি মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, মিথ্যা-বানোয়াট, হয়রানি ও ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় জননেত্রী শেখ হাসিনাকে ওয়ান ইলেভেনের তত্ত্বাবধায়ক সরকার ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই গ্রেফতার করে। শেখ হাসিনাকে রাজনীতি থেকে চিরদিনের জন্য নির্বাসিত করার লক্ষ্যে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেফতার করা হয়েছিল। সাব-জেলেও শেখ হাসিনাকে হত্যার নীলনকশা করেছিল ষড়যন্ত্রকারীরা। এই গ্রেফতারের প্রতিবাদে আওয়ামী লীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা আন্দোলনে ফেঁটে পড়েন। ধীরে ধীরে তা তীব্রতর হয়। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক চাপে এবং বঙ্গবন্ধু কন্যার আপসহীন ও দৃঢ় মনোভাবের পরিপ্রেক্ষিতে তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার শেখ হাসিনাকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়। কারণ বঙ্গবন্ধু কন্যা কখনো মাথা নত করেননি। তিনি কখনো ক্ষমতার জন্যে রাজনীতি করেন না, রাজনীতি করেন জনগণের জন্যে। তাই আজকের এই দিন শুধু শেখ হাসিনার কারাবন্দি দিবস নয়, এই দিন বাংলাদেশের গণতন্ত্রের বন্দি দিবস। এই দিন শেখ হাসিনাকে বন্দি করে আমাদের বিকাশমান গণতন্ত্রকে বন্দি করা হয়েছিল।

তিনি বলেন, স্বাধীনতা বিরোধীরা থেমে নেই। তারা ষড়যন্ত্র, অপপ্রচার ও মিথ্যাচারে লিপ্ত রয়েছে। শুধু বিএনপি-জামায়াত নয়, সব ষড়যন্ত্রকারীর বিরুদ্ধে আমাদের সজাগ থাকতে হবে। বিএনপি-জামায়াতসহ ষড়যন্ত্রকারীরা জানে নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় যাওয়া যাবে না। তাই তারা ষড়যন্ত্রের খেলায় মেতে উঠেছে। কোনো অবস্থাতেই এটা হতে দেওয়া হবে না। কোনো অনির্বাচিত সরকারকে আর ক্ষমতায় আসতে দেওয়া হবে না। আওয়ামী লীগ ঐক্যবন্ধভাবে দেশবাসীকে সাথে নিয়ে সকল ষড়যন্ত্র রুখে দিয়ে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশকে উন্নয়নের কাংখিত গন্তব্যে নিয়ে যাবে।

শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় দলীয় কার্যালয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী দেশরতœ জননেত্রী শেখ হাসিনা এমপি‘র কারাবন্দি দিবস উপলক্ষে মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। এসময়ে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম ডি এ বাবুল রানা, সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শ্যামল সিংহ রায়, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শহিদুল হক মিন্টু, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক শেখ ফারুক হাসান হিটলু, সদর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাড. মো. সাইফুল ইসলাম, নির্বাহী সদস্য অধ্যা. রুনু ইকবাল বিথার, এস এম আকিল উদ্দিন, মহানগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক রনজিত কুমার ঘোষ, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি এম এ নাসিম, মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি শেখ শাহজালাল হোসেন সুজন। খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগের পরিচালনায় এসময়ে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা মাকসুদ আলম খাজা, মো. মফিদুল ইসলাম টুটুল, মোজাম্মেল হক হাওলাদার, মাহবুবুল আলম বাবলু মোল্লা, কাউন্সিলর ফকির মো. সাইফুল ইসলাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোশাররফ হোসেন, মো. মোতালেব হোসেন, মীর বরকত আলী, অধ্যা. এ বি এম আদেল মুকুল, এস এম আসাদুজ্জামান রাসেল, আইরিন চৌধুরী নিপা, এ্যাড. রাবেয়া ওয়ালী করবী, কাউন্সিলর এস এম মোজাফফর রশিদী রেজা, কাউন্সিলর কণিকা সাহা, এ্যাড. শামীম আহমেদ পলাশ, চ.ম মজিবুর রহমান, ইউসুফ আলী খান, ফায়েজুল ইসলাম টিটো, মীর মো. লিটন, মো. সিহাব উদ্দিন, মো. সেলিম মুন্সি, পারভিন ইলিয়াছ, জেসমিন সুলতানা শম্পা, নাসরিন সুলতানা তন্দ্রা, আফরোজা জেসমিন বিথী, রেখা খানম, রেহানা আক্তার, মো. শহীদুল হাসান, আব্দুর রহীম খান, নজরুল ইসলাম, শফিকুর রহমান, মো. আজিম উদ্দিন, কামরুল ইসলাম, শরীফ মোর্ত্তজা, বিপ্লব সাহা লব, জব্বার আলী হীরা, মাহমুদুর রহমান রাজেস, সংকর কুন্ডু, এম এ হাসান সবুজ, রুম্মান আহমেদ, রাহুল শাহরিয়ার সহ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: BD IT SEBA