• E-paper
  • English Version
  • বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৩:০৮ পূর্বাহ্ন

×
সংবাদ শিরোনাম :
দেশের বিভিন্ন স্থানে ৫.৪ মাত্রার ভূমিকম্প অনুভূত রামপালে কলেজ পড়ুয়া মেয়েকে উত্যাক্তের প্রতিবাদ করায় প্রতিপক্ষের লাঠির আঘাতে মা মেয়ে আহত অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো “সবুজ পৃথিবীর সন্ধানে” প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান খুলনায় তিনদিনের কর্মসুচি – শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বীর উত্তম এঁর ৪৩তম শাহাদাতবার্ষিকী খুমেক হাসপাতালের সামনে থেকে ৯টি দেশি অস্ত্র উদ্ধার যশোরে মাদক ব্যবসায়ীর যাবজ্জীবন “ত্রান চাইনা,টেকসই বেড়িবাঁধ চাই”  সরকার জরুরী ভিত্তিতে বেঁড়িবাঁধ সংস্কার করে জলবন্দি মানুষদের মুক্ত করবে-ভুমিমন্ত্রী  ঘূর্নিঝড় রেমালে ক্ষতিগ্রস্থদের সহায়তায় সার্বক্ষণিক পাশে রয়েছেন সরকার-ত্রান প্রতিমন্ত্রী মোঃ মহিববুুর রহমান পাউবোর ব্যর্থতায় সহস্রাধিক মানুষের সেচ্ছাশ্রমে মেরামতের পর পরই ভেঙে গেল কয়রার বেঁড়িবাঁধ পরমানু বিজ্ঞানী ওয়াজেদ মিয়ার জন্মবার্ষিকী খুলনায় ‘দেশের অগ্রগতিতে বিজ্ঞান চর্চা’ শীর্ষক আলোচনা সভা

খুলনায় ব্যবসায়ী হত্যা; নানান হয়রানির পর মামলা দায়ের

  • প্রকাশিত সময় : বুধবার, ৫ জুলাই, ২০২৩
  • ১৭৪৫ পড়েছেন

গত ২৬ শে জুন খুলনার রেলষ্টেশন এলাকা থেকে বনমালী নামে একজন ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার হয়। বনমালী নিখোজ হওয়ার পর থেকে নানান ধরনের হয়রানির শিকার হয় পরিবারের লোকজন। পুলিশকে জানালেও সঠিক সময়ে কোন পদক্ষেপ নেয়নি বলে অভিযোগ করেছেন স্বজনরা। অবশেষে ৩রা জুলাই নিহতের বড় ভাই কেশব মণ্ডল বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন।
দায়েরকৃত মামলায় আসামীরা হলেন, ১। অমিত ঘোষ (৫০), মালিক ঘোষ ট্রেডার্স, পিতা-অজ্ঞাত, ২। মিঠু ঘোষ (৪০) পিতা-অজ্ঞাত, ৩। মিতা (৩৫), স্বামী-অমিত ঘোষ, ৪। সঞ্জিব ঘোষ (৪৫),পিতা-অজ্ঞাত ৫। মোঃ মিন্টু (৩৫) পিতাঃ অজ্ঞাত সর্ব সাং- ঘোষ ট্রেডার্স কদমতলা ষ্টেশন রোড, খুলনা সদর খুলনা, ৬। সাধন ঘোষ (৫৫), পিতা- অজ্ঞাত, প্রোপাইটর কপোতাক্ষ ভান্ডার কদমতলা ষ্টেশন রোড, বড় বাজার খুলনাসহ অজ্ঞাত ৪/৫ জন।
এজাহার সূত্রে, নিহতের নাম বনমালি মন্ডল(৩৫), পিতা- মৃত: যতিন মণ্ডল সাং-০৬ নং কয়রা, থানা-কয়রা, জেলা- খুলনা। তিনি ঘোষ ট্রেডার্স’র মালিক অমিত ঘোষের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে মাসিক বেতনে দীর্ঘদিন প্রায় ১১ বছর চাকুরী করতেন। এরপর অমিত ঘোষের প্রতিষ্ঠান হতে কাজ ছেড়ে দিয়ে নিজেই কদম তলা স্টেশন রোড এলাকায় পদ্মা ভান্ডার নামে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলে ব্যবসা- বানিজ্য করতে থাকেন। বনমালী গত ইংরেজী ২৫/০৬/২০ তারিখে বিকাল অনুমান ৩.০০ থেকে ৩.৩০ ঘটিকার সময় প্রতিদিনের মতো তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বের হন। কিন্তু ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে না পৌছাইলে তার ম্যানেজারসহ বনমালীর স্ত্রী বার বার ফোনে কল দিতে থাকেন। কিন্তু রিং হলেও বনমালী ফোন ধরেন নাই। হঠাৎ করে সন্ধ্যা অনুমান ৭টা ১১ মিনিটে বনমালীর মোবাইল নাম্বার থেকে তার প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজার হেমন্ত বাবুর মোবাইল ফোনে একটি মেসেজ আসে। ম্যানেজার হেমন্ত বাবু উক্ত মেসেজটি পড়ে বনমালীর স্ত্রীকে ম্যাসেজের ব্যাপারে জানান। ম্যাসেজটি হলো- HEMENTO BIKALA 4.30 POR KARA JANO AMAKA CHOK BADHA ATKA RAKASA. ANDOKAR GORER MODDA. AMAR PHONE SILINT CILO TAI NITA PRANI. ORA BOLSA KHULNA SARBI NAHOLE MARA FALA HOBA. AMI KUB KOSTO KORE PHONTA BER KORE TOMAKE JANILAM. KOTHA BOLLA DORA PORA JABO, PASA LOK BOSA. TOMEDER SATHA HOITO R DHAKA HOBA NA. DULA BAIKA BOLO AMI BIPODA ASI. তখন বনমালীর স্ত্রী বিষয়টি জানতে পেরে ঘোষ ট্রেডার্স এর মালিক অমিত ঘোষের স্ত্রীকে ফোন করে বলে আমার স্বামীকে এবারের মত ছেড়ে দিন। আমি আমার বাচ্চা, স্বামী সহ আমাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গুছিয়ে খুলনা হতে চলে যাবো। তখন অমিত ঘোষের স্ত্রী মিতা ঘোষ বলেন, তোমার স্বামীর শাস্তি পাওয়ার দরকার আছে। এ বলে মোবাইল ফোনটি কেটে দেন। এরপর সোনাডাঙ্গা থানা পুলিশকে জানালে তারা অবহেলা করে এবং অপেক্ষা করতে বলেন।
কেশব মন্ডল বলেন, বনমালী পদ্মা ভান্ডার নামে নতুন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান করার ফলে ঘোষ ট্রেডার্সের মালিকসহ অনান্যদের সাথে ব্যবসায়িক মনোমালিন্য হতে থাকে। এরই সূত্রে, তারা আমার ভাইকে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি ও হয়রানী করার চেষ্টা করছিলো। বিষয়টি নিয়ে সুরাহা হওয়ার আগেই এই ঘটনা ঘটে। তিনি আরো বলেন, বিবাদীরা পরস্পর যোগসাজসে আমার ভাইকে হত্যার করার উদ্দেশ্যে অপহরন করেন। তাকে রেলওয়ে ষ্টেশনের পশ্চিম মাথায় ফাঁকা ইয়ার্ডে নিয়া পরিকল্পিতভাবে পূর্ব শত্রুতার কারনে খুন করে ফেলে রাখে। রেলওয়ে থানার পুলিশ আমার ভাইয়ের লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুত করে পোষ্ট মডাম শেষে আমাদের নিকট হস্তান্তর করে। তার দেহের সৎক্রিয়া সম্পন্ন করে পরিবারের লোকজন ও আত্মীয়স্বজনের সহিত আলাপ আলোচনা করে মামলা দায়ের করেছি।
অমিত ঘোষের সাথে এ বিষয়ে কথা বলতে গেলে, অমিত ঘোষের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে তাকে পাওয়া যায়নি।
সোনাডাঙ্গা থানার ওসি মমতাজুল হক জানান, সোমবার রাত ১২টার দিকে নিখোঁজ ব্যাবসায়ীর দোকানের ম্যানেজার থানায় এসেছিলেন। সঙ্গে ঐ ব্যবসায়ীর কোনো আত্মীয়-স্বজন ছিল না। বিষয়টি ভালোভাবে না বলতে পারায় ও সোনাডাঙ্গা থানা এলাকায় না হওয়ায় তাকে আমরা অপেক্ষা করতে বলি। তবে, তাদের অভিযোগটি গুরুত্ব দেওয়া হয়নি এটি সঠিক নয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এধরনের আরো সংবাদ

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: BD IT SEBA