• E-paper
  • English Version
  • বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১০:৫৮ অপরাহ্ন

×
সংবাদ শিরোনাম :
ঐচ্ছিক তহবিলের চেক বিতরণ করেন অধ্যাপক রুনু রেজা এমপি রামপালে ঘূর্ণিঝড় রেমালে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ  বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর আন্তঃঘাঁটি সাঁতার ও ওয়াটার পোলো প্রতিযোগিতা-২০২৪ সমাপ্ত স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ জিয়াউর রহমান এর ৪৩তম শাহাদাৎ বার্ষিকীতে – মঞ্জু প্রধান সম্পাদকের মায়ের মৃত্যুতে খুলনা টাইমস পরিবারের শোক রূপসা জাবুসায় চেয়ারম্যান প্রার্থী ফেরদৌস আহম্মেদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত  ঘূর্ণিঝড় রেমালে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সোহাগের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ: খুলনা মহানগর যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক সুজনের মায়ের ইন্তেকাল দেশের বিভিন্ন স্থানে ৫.৪ মাত্রার ভূমিকম্প অনুভূত রামপালে কলেজ পড়ুয়া মেয়েকে উত্যাক্তের প্রতিবাদ করায় প্রতিপক্ষের লাঠির আঘাতে মা মেয়ে আহত

আসাবুর বাহিনীর প্রধান আসাবুরসহ আটজনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব—৬

  • Update Time : রবিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২৩
  • ১৪৫ Time View

র‌্যাব—৬ খুলনার দাকোপ ও মোংলার ইপিজেড এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে আসাবুর বাহিনীর প্রধানসহ কয়েকজনকে গ্রেফতার করে। শনিবার অভিযান চালিয়ে এ দস্যুবাহিনীদের গ্রেফতার করে র‌্যাব—৬।

গ্রেফতারকৃত আসামীরা হলো, ১। আসাবুর সানা (৪৩), পিতা—আয়নাল সানা, ২। মোঃ শরিফুল ঢালী (৩৭), ৩। মোঃ শাহিন সানা (২৭), পিতা—দিদারুল সানা, ৪। মোঃ ইস্রাফিল সানা (২৭), পিতা—কাওসার সানা, সর্ব থানা— দাকোপ, জেলা— খুলনা, ৫। মোঃ শফিকুল ইসলাম, পিতা—মৃত সামাদ শেখ, থানা— ফকিরহাট, জেলা— বাগেরহাট, ৬। মোঃ রাকিব ফরাজি (২২), পিতা—রুহুল আমীন, থানা— নড়াগাতি, জেলা— নড়াইল, ৭। সোহান মৃধা (১৯), পিতা—সামসুর রহমান, কেএমপি, খুলনা ও ৮। মোঃ আকবর আলী শেখ (২৫), পিতা—আমির আলী শেখ, থানা— ফকিরহাট, জেলা— বাগেরহাট। এ সময় তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় দেশী—বিদেশী অস্ত্র ও গোলাবারুদ। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা জলদস্যুতার সাথে তাদের সম্পৃক্ততার বিষয় স্বীকার করে।

তথ্যসূত্রে, আসাবুর মূলত মৃত্যুঞ্জয় বাহিনীর প্রধান আকাশ বাবু @মৃত্যুঞ্জয় এর শীর্ষ এবং ২০০৩—২০০৭ সাল পর্যন্ত মৃত্যুঞ্জয় বাহিনীর সক্রিয় সদস্য ছিল। সে মৃত্যুঞ্জয় এর সাথে চার বছর সুন্দরবনে ছিল। মৃত্যুঞ্জয় পাশ্ববর্তী দেশে চলে গেলে সে বিভিন্ন স্থানে পালিয়ে বেড়াতো ও বিভিন্ন বাহিনীর সাথে মিলে দস্যুতা করত। তার কাছে একটি ডাবল বেরেল বন্দুক ছিল এবং পরে কোষ্টগার্ড কতৃক শশ্মান থেকে তা উদ্ধার করা হয়। আসাবুর ইতোপূর্বে ১টি অস্ত্র মামলায় তিন বছর কারাভোগ করে ২০১৫ সালে জামিনে মুক্তি পায়। পরবর্তীতে সে ২০১৬ হতে ছোট জাহাঙ্গীর বাহিনীর উপ—প্রধান ছিল। ছোট জাহাঙ্গীর ২০১৯ সালে র‌্যাবের নিকট আত্মসমর্পণ করেলেও সে আত্মসমর্পন করেনি। এ সময়ে সে বিভিন্ন বাহিনীর সাথে থেকে জেলেদের অপহরণ, মুক্তিপণ আদায়সহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কার্যক্রম পরিচালনা করত। আসাবুর ২০ জুলাই ২০২৩ তারিখ তার সহযোগীদের নিয়ে সুন্দরবনে চার দিন অবস্থান করে ২৩ জুলাই ২০২৩ তারিখ ১০ জন জেলেকে জিম্মি করে বিপুল পরিমান অর্থ মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে গ্রহণ করে। মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে প্রাপ্ত অর্থ উত্তোলনের সাথে জড়িত মোবাইল ব্যাংকিং ব্যবসায়ী রবিউলসহ অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতার করে ইতোমধ্যে আইনের আওতায় নিয়ে এসেছে র‌্যাব। তার নামে থানায় ০১টি ডাকাতি মামলা রয়েছে। গ্রেফতারকৃত শরিফুল ২০১৬ সালে আসাবুরের সাথে ছোট জাহাঙ্গীর বাহিনীতে ছিল। সে পূর্বে জেলে পেশায় নিয়োজিত ছিল। বর্তমানে সে আসাবুর বাহিনীর সক্রিয় সদস্য। সে জেলেদের অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়সহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত ছিল। গ্রেফতারকৃত ইস্রাফিল ২০১৭ সালে আসাবুরের সাথে ছোট জাহাঙ্গীর বাহিনীতে ছিল। সে পূর্বে জেলে পেশায় নিয়োজিত ছিল। সে আসাবুর বাহিনীর অস্ত্র জিম্মায় রাখতো এবং সরবারহ করত এছাড়া জেলেদের অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়সহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত ছিল। গ্রেফতারকৃত শাহিন ২০১৮ সালে আসাবুরের সাথে ছোট জাহাঙ্গীর বাহিনীতে ছিল। সে পূর্বে জেলে পেশায় নিয়োজিত ছিল। সে ডাকাত দলের জন্য সদস্য সগ্রহ করত এবং জেলেদের অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়সহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত ছিল। গ্রেফতারকৃত রাকিব আর্থিক অভাব ও বিভিন্ন সমস্যার কারণে গত ২০১৮ সালে আসাবুরের সাথে ছোট জাহাঙ্গীর বাহিনীতে ছিল। বর্তমানে সে আসাবুর বাহিনীর সক্রিয় সদস্য। পূর্বে সে দিনমুজুর হিসেবে কাজ করতো। জেলেদের অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়সহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ডের সাথে জড়িত ছিল।

উল্লেখ্য, সুন্দরবনকে দস্যুমুক্ত করতে প্রতিষ্ঠা হতে অদ্যবধি পর্যন্ত র‌্যাব কর্তৃক ৩৭০টি সফল অভিযান পরিচালনা করে ৯১১ জন জলদস্যু/বনদস্যু গ্রেফতার পূর্বক ২০২৮টি অস্ত্র ও ৪২,৬৯০ রাউন্ড গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়েছে। র‌্যাবের আহবানে ২০১৬ সাল হতে ০১ নভেম্বর ২০১৮ তারিখ সুন্দরবন অঞ্চলের সর্বমোট ৩২টি জলদস্যু বাহিনীর ৩২৮ জন জলদস্যু, ৪৬২টি অস্ত্র ও ২২,৫০৪ রাউন্ড গোলাবারুদসহ র‌্যাব এর নিকট আত্মসমর্পণ করেছে। ০১ নভেম্বর ২০১৮ তারিখ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সুন্দরবনকে ‘দস্যুমুক্ত সুন্দরবন’ ঘোষণা করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: BD IT SEBA