×

খুলনায় বঙ্গবন্ধু’র শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত

  • প্রকাশিত সময় : বুধবার, ১৬ আগস্ট, ২০২৩
  • ৭৮ পড়েছেন

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৮তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস খুলনায় যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে সকল সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, বেসরকারি ভবন ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়।

সকাল আটটায় খুলনা জেলা প্রশাসকের কার্যালয় প্রাঙ্গণে স্থাপিত জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণের মাধ্যমে ১৫ আগস্টে শাহাদত বরণকারী জাতির পিতা ও তাঁর পরিবারের শহিদ সদস্যদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। খুলনা জেলা ও মহানগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড, শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান, খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, বিভাগীয় কমিশনার মোঃ হেলাল মাহমুদ শরীফ, কেএমপি’র পুলিশ কমিশনার মোঃ মোজাম্মেল হক, রেঞ্জ ডিআইজি মঈনুল হক, জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফীন, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাঈদুর রহমান, মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগ এবং এর অঙ্গ সংগঠন, সরকারি-বেসরকারি দপ্তর, বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ এসময় পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন।

সকাল ১০টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি অডিটোরিয়ামে খুলনা জেলা প্রশাসন আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান। প্রতিমন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের স্বাধীন পতাকা ও স্বাধীন ভূখন্ড দিয়েছেন। ঘাতকরা তাঁকে হত্যা করে বাংলাদেশ থেকে জাতির পিতার আদর্শকে মুছে দিতে চেয়েছে। প্রকৃতপক্ষে জীবিত মুজিবের চেয়ে মৃত মুজিব অনেক বেশি শক্তিশালী।

খুলনার বিভাগীয় কমিশনার মোঃ হেলাল মাহমুদ শরীফের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোঃ মোজাম্মেল হক, অতিরিক্ত রেঞ্জ ডিআইজি মোঃ নিজামুল হক মোল্যা, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাঈদুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আলমগীর কবির, বীর মুক্তিযোদ্ধা সরদার মাহাবুবার রহমান ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন মিন্টু। স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফীন।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে খুলনা আঞ্চলিক তথ্য অফিস শিল্পকলা একাডেমি প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম বিষয়ক আলোকচিত্র প্রদর্শনী এবং আঞ্চলিক তথ্য অফিসের উপপ্রধান তথ্য অফিসার এ এস এম কবীরের সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম নিয়ে আলোচনা সভা এবং দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে। খুলনাস্থ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ এর ২১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের উদ্যোগে গরীব ও দুস্থদের মাঝে বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা এবং খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। দিবসটি উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ বেতারের খুলনা কেন্দ্রে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম নিয়ে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। সকালে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান বিভাগীয় শ্রম দপ্তরে মুজিব কর্নারের উদ্বোধন করেন।

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে আজ মঙ্গলবার যথাযথ মর্যাদায় স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর ৪৮তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস ২০২৩ পালিত হয়েছে। কর্মসূচির মধ্যে ছিল বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধা নিবেদন, শিশুদের চিত্রাঙ্কন, নিম্নমাধ্যমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের বিষয়ভিত্তিক রচনা প্রতিযোগিতা, বঙ্গবন্ধুর ওপর প্রমাণ্য চিত্র প্রদর্শনী, আলোচনা সভা, পুরস্কার বিতরণ ও দোয়া মাহফিল। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক।

নগর ভবনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সিটি মেয়র স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ পনেরই আগস্ট নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, শিশু-কিশোরদের নিকট আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রাম এবং বাঙালী জাতির জন্য জাতির পিতার অবদান তুলে ধরতে শোকের এই দিনে কেসিসি’র পক্ষ থেকে চিত্রাঙ্কন ও রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। এই আয়োজনের মধ্য দিয়ে আজকের শিশু-কিশোররা বঙ্গবন্ধুকে সঠিকভাবে জানতে পারবে। শিশু-কিশোরদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু এমন একজন নেতা যার জন্ম না হলে বাংলাদেশের জন্ম হতো না। অথচ বিপথগামী কিছু সেনা সদস্য মহান এ নেতাকে স্বপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করে। আজ তারই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশকে সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে নিচ্ছেন। দেশের কল্যাণে ঐক্যবদ্ধ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করার জন্য তিনি সকলের প্রতি আহবান জানান।

কেসিসি’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (যুগ্ম সচিব) লস্কার তাজুল ইসলাম-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন মেয়র প্যানেলের সদস্য মো: আলী আকবর টিপু। কেসিসি’র কাউন্সিলর, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর ও সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় ‘ক’ বিভাগে (প্লে থেকে নার্সারী) কাজী সাওদা জাহান ১ম স্থান, ফাতেমা জামান সায়মা ২য় ও সিদরাতুল মুনতাহা ৩য়; ‘খ’ বিভাগে (১ম ও ২য় শ্রেণি) উচ্ছাস সেন স্বপ্ন ১ম, মারশিহা মেহনাজ ২য় ও হিতেষ কুন্ডু ৩য় এবং ‘গ’ বিভাগে (৩য় থেকে ৫ম শ্রেণি) সিয়াম শেখ ১ম, রোদোসী মাহজাবিন ঐশ্বর্য ২য় ও কাশফিয়া নেহরিন অপ্সরা ৩য় স্থান অধিকার করে। এছাড়া রচনা প্রতিযোগিতায় ‘ঘ’ বিভাগে (৬ষ্ঠ থেকে ৮ম শ্রেণি) যাহরা ১ম, কাজী রুকাইয়া জাহান ২য় ও সিনহা হোসেন শখ ৩য় এবং ‘ঙ’ বিভাগে (৯ম ও ১০ম শ্রেণি) সামিহা রহমান ১ম, আফরিন মৌ ২য় ও তাহেরা হোসেন নাফিছা ৩য় স্থান অধিকার করে। সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক চিত্রাঙ্কণ ও রচনা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।

শেষ পর্বে বঙ্গবন্ধুসহ ১৫আগস্টে শাহাদাত বরণকারীদের রূহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। দোয়া পরিচালনা করেন মাওলানা মো: রফিকুল ইসলাম।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: BD IT SEBA