×

খুলনার রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের শ্রমিকরা নিদারুণ যন্ত্রণা ও উৎকণ্ঠার মধ্যে দিনাতিপাত করছে

  • প্রকাশিত সময় : রবিবার, ১২ নভেম্বর, ২০২৩
  • ১৫৫ পড়েছেন

লিজ বা ব্যক্তি মালিকানায় নয়, বন্ধ সকল রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল অবিলম্বে রাষ্ট্রীয় মালিকানায় চালু এবং ৫ মিলের শ্রমিকদের ন্যায্য পাওনাসহ সকল শ্রমিকের সমুদয় বকেয়া পাওনা পরিশোধের দাবিতে পাটকল রক্ষায় সম্মিলিত নাগরিক পরিষদের উদ্যোগে শনিবার দুপুর ১২টায় অস্থায়ী কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন নাগরিক পরিষদের যুগ্ম-আহবায়ক ও বিপ্লবী কমিউনিস্ট লীগ কেন্দ্রীয় সদস্য মোঃ মোজাম্মেল হক খান। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন পরিষদের সদস্য সচিব এস এ রশীদ।

তিনি বলেন, গত ২০২০ সালের ২জুলাই সরকার ২৬টি রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের উৎপাদন বন্ধ করার নোটিশ দিয়ে কার্যত মিল বন্ধ করে দিয়েছে। মিল বন্ধের ২ মাসের মধ্যে সকল পাওনা পরিশোধের অঙ্গীকার করলেও অদ্যাবধি খুলনার খালিশপুর জুট মিল ও দৌলতপুর জুট মিল, সিরাজগঞ্জের জাতীয় জুট মিল এবং চট্টগ্রামের কেএফডি ও আরআর জুট মিলের শ্রমিকরা বকেয়া কোন টাকা পায়নি। এছাড়াও সকল মিলের শ্রমিকদের ৮টি উৎসব বোনাসের ডিফারেন্স, ২০২০ সালের ঈদুল আযহার বোনাস, ২০২০ সালের জুলাই মাসের ২ দিনের ইনক্রিমেন্টসহ মজুরি, লকডাউন কালীন ভাতা পরিশোধ করা হয়নি। ফলে শ্রমিকরা নিদারুণ যন্ত্রণা ও উৎকণ্ঠার মধ্যে দিনাতিপাত করছে। বর্তমানে জীবন যাপন ব্যয় অত্যধিক বৃদ্ধি পাওয়ায় কর্মহীন এবং বকেয়া পাওনা থেকে বঞ্চিত শ্রমিকরা তাদের পরিবার পরিচালনা করতে হিমশিম খাচ্ছে। এ মতাবস্থায় অবিলম্বে সকল মিল রাষ্ট্রীয় মালিকানায় চালু করে শ্রমিকদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা এবং সকল বকেয়া পাওনা পরিশোধ করা জরুরি।

তিনি বলেন, আগামী ১৩ নভেম্বর খুলনায় সরকার দলীয় জনসভায় প্রধানমন্ত্রী বক্তব্য রাখবেন। আমরা নাগরিক পরিষদের পক্ষ থেকে এবং এ অঞ্চলের শ্রমিক নেতা ও সাধারণ শ্রমিকরা বুক বেঁধে আছেন যে, উক্ত জনসভায় প্রধানমন্ত্রী লিজ বন্ধ, পাটকল রাষ্ট্রীয়ভাবে চালু ও শ্রমিকদের সকল বকেয়া পরিশোধ সম্পর্কে ইতিবাচক বক্তব্য রাখবেন।

তিনি বলেন, মুক্তবাজার নির্ভর পুঁজিবাদী উন্নয়ন দর্শন, বিশ্বব্যাংক-আইএমএফসহ দাতাতুষ্টির নীতি, পরিকল্পনাহীনতা ও ব্যবস্থাপনা অদক্ষতার কারণে বিপুল সম্ভাবনা থাকা সত্তে¡ও আমাদের রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলোকে লোকসানি প্রতিষ্ঠানে পরিণত করা হয়েছে। ইতিমধ্যে বন্ধকৃত ২৬টি পাটকলের বেশ কয়েকটি ব্যক্তি মালিকানাধীন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের কাছে লীজ দেওয়া হয়েছে। আমরা আগেই বলেছি, এই প্রক্রিয়ায় রাষ্ট্রায়ত্ত সম্পদকে ব্যক্তি মালিকানাধীন ব্যবসায়ী গোষ্ঠীর লুটপাটের জন্য উন্মুক্ত করার সুযোগ তৈরি করবে।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন গণসংহতি আন্দোলন জেলা আহবায়ক মুনীর চৌধুরী সোহেল, পাটকল রক্ষায় সম্মিলিত নাগরিক পরিষদের যুগ্ম-আহবায়ক এড. মোঃ বাবুল হাওলাদার, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) মহানগর সভাপতি মিজানুর রহমান বাবু, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ) জেলা কমিটির সদস্য সচিব কোহিনুর আক্তার কনা, সিপিবি মহানগর সাধারণ সম্পাদক এড. নিত্যানন্দ ঢালী, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট খুলনা জেলা সভাপতি আবদুল করিম, কে এস ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা খ ম শাহীন হোসেন, বাংলাদেশ যুব ইউনিয়ন খুলনা জেলা সভাপতি আফজাল হোসেন রাজু, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আল আমিন শেখ, যশোর-খুলনা আঞ্চলিক কমিটির আহবায়ক মোঃ ইলিয়াস হোসেন, প্লাটিনাম জুটমিল বদলী কমিটির সভাপতি মোঃ আবদুর রাজ্জাক তালুকদার প্রমুখ।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: BD IT SEBA