• E-paper
  • English Version
  • বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৯:৪৬ অপরাহ্ন

×
সংবাদ শিরোনাম :
খুলনা মহানগর যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক সুজনের মায়ের ইন্তেকাল দেশের বিভিন্ন স্থানে ৫.৪ মাত্রার ভূমিকম্প অনুভূত রামপালে কলেজ পড়ুয়া মেয়েকে উত্যাক্তের প্রতিবাদ করায় প্রতিপক্ষের লাঠির আঘাতে মা মেয়ে আহত অনুষ্ঠিত হয়ে গেলো “সবুজ পৃথিবীর সন্ধানে” প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান খুলনায় তিনদিনের কর্মসুচি – শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বীর উত্তম এঁর ৪৩তম শাহাদাতবার্ষিকী খুমেক হাসপাতালের সামনে থেকে ৯টি দেশি অস্ত্র উদ্ধার যশোরে মাদক ব্যবসায়ীর যাবজ্জীবন “ত্রান চাইনা,টেকসই বেড়িবাঁধ চাই”  সরকার জরুরী ভিত্তিতে বেঁড়িবাঁধ সংস্কার করে জলবন্দি মানুষদের মুক্ত করবে-ভুমিমন্ত্রী  ঘূর্নিঝড় রেমালে ক্ষতিগ্রস্থদের সহায়তায় সার্বক্ষণিক পাশে রয়েছেন সরকার-ত্রান প্রতিমন্ত্রী মোঃ মহিববুুর রহমান পাউবোর ব্যর্থতায় সহস্রাধিক মানুষের সেচ্ছাশ্রমে মেরামতের পর পরই ভেঙে গেল কয়রার বেঁড়িবাঁধ

ভেজাল প্রতিরোধে আরো দায়িত্বশীল হতে হবে

  • Update Time : রবিবার, ৯ জুলাই, ২০২৩
  • ৬৭ Time View

কিশোর বিদ্রোহী কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য মারা গিয়াছেন দেশ বিভাগেরও পূর্বে, ১৯৪৭ সালের ১৩ মে। সেই সময় কবি লিখিয়াছিলেন, ‘ভেজাল পোশাক, ভেজাল খাবার, ভেজাল লোকের ভাবনা, ভেজালেরই রাজত্ব এ পাটনা থেকে পাবনা।’ তাহার প্রয়াণের পর ৭৬ বছর পার হইয়া গিয়াছে; কিন্তু আজও এই উপমহাদেশ হইতে বিভিন্ন নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যে ভেজাল দেওয়ার প্রবণতা কমে নাই। বরং অন্য কিছুর ন্যায় ইহারও প্রমোশন বা উন্নতি হইয়াছে বলিলেও অত্যুক্তি হয় না। আমরা কত কিছুতে উন্নতি লাভ করিলাম; কিন্তু এই ভেজালের রাজত্ব দূর করিতে পারিলাম না। আফসোস, এমন আত্মঘাতী কাজ মানুষ কি করিতে পারে!

আর কিছুদিন পরই আসিতেছে পবিত্র ঈদুল আজহা। কোরবানির এই ঈদ উপলক্ষে বাজারে মসলা জাতীয় পণ্যের চাহিদা বৃদ্ধি পাইয়াছে। ইহাই স্বাভাবিক। প্রতি বছরই এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়; কিন্তু ইহার সহিত পাল্লা দিয়া সক্রিয় হইয়া উঠিয়াছে একশ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী। তাহারা বিভিন্ন প্রকার মসলায় ভেজাল সংমিশ্রণে তৎপর হইয়া উঠিয়াছে। চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন এলাকায় তাহারা গড়িয়া তুলিয়াছে ভেজাল গুঁড়া মসলার কারখানা। সেখানে কাপড়ের রং ও ধান-চাউলের তুষ তথা পশুখাদ্য মিশাইয়া তৈরি করিতেছে গুঁড়া মসলা। এই ভেজাল মসলা মানবদেহের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। ইহাতে ক্যানসার, লিভার ও কিডনি বিকল, চর্মরোগ, পাকস্থলীর রোগসহ নানা জটিল অসুখবিসুখ হইতে পারে। ধান-চাউলের তুষ হজম প্রক্রিয়ায় বিঘ্ন ঘটায় বলিয়া পাকস্থলী ও কিডনি ধীরে ধীরে অকেজো হইয়া যায়। এক সমীক্ষায় দেখা গিয়াছে, বাজারের খোলা ও প্যাকেটজাত গুঁড়া মসলার অধিকাংশই ভেজাল। অনেক সময় মসলায় কাঠের ভুসিও মিশানো হয়। মরিচের গুঁড়ায় ঝাল ও সরিষার তৈলে ঝাঁঝ বাড়াইবার জন্য মিশানো হয় ক্ষতিকর রাসায়নিক পদার্থ। হলুদের সহিত লেড ক্রোমেট ও ধনের সহিত হাইড্রোজ মিশানোর কথাও আমরা জানি। এই সকল ভেজাল খাদ্য নীরব ঘাতকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হইয়াছে; কিন্তু চোরা না শুনে ধর্মের কাহিনী। অতি লোভ তাহারা সংবরণ করিতে পারিতেছে না। গুঁড়া মসলায় এমন ভেজাল জানিয়া-শুনিয়া বিষপানের শামিল।

বাংলাদেশ খাদ্য নিরাপদ কর্তৃপক্ষ চট্টগ্রামের বাকলিয়ার মিয়াখান নগরসহ বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করিয়া কয়েক জনকে পাকড়াও করিয়াছে। তবে এই অভিযান শুধু চট্টগ্রামেই নহে, সমগ্র দেশেই পরিচালনা করা প্রয়োজন। ঈদুল ফিতরের সময় আমরা যেমন সেমাইতে ভেজাল দেওয়ার খবর পাই, তেমনি ঈদে ভেজাল মসলার কারবারিদের দৌরাত্ম্য বাড়িয়া যায়। তাহাদের বিরুদ্ধে নিয়মিত ব্যবস্থা না লইলে তাহাদের এই অপতত্পরতা বন্ধ করা যাইবে না। আমরা জন্মের পর হইতেই খাদ্যে ভেজাল দেওয়ার কথা শুনিয়া আসিতেছি। ইত্তেফাকের ‘আমরা কী খাচ্ছি‘ নামের সিরিজ রিপোর্টের পর জনগণের মধ্যে এই ব্যাপারে কিছুটা সচেতনতা আসিয়াছে; কিন্তু প্রশাসনিক পদক্ষেপ কাঙ্ক্ষিতভাবে বৃদ্ধি না পাওয়ায় ভেজালের অবসান হইতেছে না। এই ব্যাপারে এখন কদাচিৎ ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়। অথচ এইরূপ পদক্ষেপ সমগ্র বছর ধরিয়াই অব্যাহত রাখা প্রয়োজন। আবার সুকান্তের ভেজাল কবিতায় ফিরিয়া আসিতে হয়। তিনি আরও লিখিয়াছেন, ‘ভেজাল তেল আর ভেজাল চাল, ভেজাল ঘি আর ময়দা,/ ‘কৌন ছোড়ে গা ভেজাল ভেইয়া, ভেজালসে হ্যায় ফয়দা’। ভেজাল করিয়া ভেজালকারবারিরা যাহাতে ফায়দা লুটিতে না পারে, সর্বাগ্রে তাহারই ব্যবস্থা নিতে হইবে। নতুবা ‘ভেজাল নামটা খাঁটি কেবল আর সকলেই মিথ্যে’ হইয়া যাইবে। এই জন্য আমাদের সকলকে সচেতন ও দায়িত্বশীল হইতে হইবে। বাজারজাত মসলা নানা উপায়ে পরখ করিয়া ক্রয় ও ব্যবহার করিতে হইবে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: BD IT SEBA